Reproductive Health Blog

Fertility Treatments

পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম (পিসিওএস)

পিসিওএস কি?

পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম (পিসিওএস), মূলত একটি জিনগত ব্যাধি, 35 শতাংশ মহিলাদের তাদের প্রজনন বছরগুলিতে এবং 90 শতাংশের কাছাকাছি স্থুলকায়/বেশি ওজনের মহিলাদের হয়ে থাকে।  পিসিওএসের প্রকোপ কম বয়সী মহিলাদের ক্ষেত্রে বাড়ছে এবং মহিলা বন্ধ্যাত্বের সম্ভবত সবচেয়ে বড় কারণ। 

প্রতি মাসে, একজন মহিলার ডিম্বাশয় (ওভারি) গর্ভধারনের জন্য একটি ডিম উৎপাদন করে।  ডিম্বাশয়ে অতি ক্ষুদ্র তরল-পূর্ণ থলি থাকে যাদের বলা হয় ফলিকল বা সিস্ট।  ডিম যখন বাড়তে থাকে, ফলিকলগুলি তরল তৈরী করতে থাকে।  যখন ডিম পরিণত হয়, ফলিকলটি ফেটে যায় এবং ডিম মুক্ত হয়।  এটি তখন গর্ভনালীর (ফ্যালোপিয়ান টিউব) মধ্য দিয়ে জরায়ুতে (গর্ভ) গর্ভাধানের জন্য আসে।  এই প্রক্রিয়াকে বলা হয় ডিম্বস্ফোটন (ওভুলেশন).

পিসিওএস আক্রান্ত মহিলাদের ক্ষেত্রে, ডিম পরিণত হয় না কারণ একটি ডিমের সম্পূর্ণ পরিণত হবার জন্য প্রয়োজনীয় হরমোনগুলি শরীরে উৎপন্ন হয় না।  ফলিকলগুলি বাড়তে থাকেএবং তরল জমা হতে থাকে কিন্তু ডিম্বস্ফোটন হয় না।  পরিবর্তে, কিছু ফলিকল ডিম্বাশয়ে সিস্ট হিসাবে থেকে যায়। 

যখন একজন যুবতী বয়ঃসন্ধিতে পৌঁছায়, তার মাসিক চক্রের হিসাব রাখা খুব জরুরি, বিশেষ করে, যদি সে স্থুল বা বেশি ওজনের হয়।  সতর্ক থাকার মানে হলো তার পিরিয়ডের তারিখের বিষয়ে একটি ডায়েরি রাখা এবং তার চক্র বোঝা।  যদি সে নিম্নলিখিত কোনো বিচ্যুতি লক্ষ্য করে, বিপদধ্বনি বাজা উচিত।  

পিসিওএসের প্রধান কারণ কি? 

  • একটি 28/30 দিনের চক্র অনুসরণ না করা বা অনিয়মিত মাসিক 
  • মাসিক রক্তের অনিয়মিত বা অপর্যাপ্ত প্রবাহ
  • বছরে 12 টির কম মাসিক চক্র

এটি হতে পারে যে এদের কয়েকটি অন্য কোনো কারণে হচ্ছে কিন্তু যদি সমস্যা 6 মাসের বেশি থাকে, পিসিওএসের উপসর্গ খোঁজা জরুরি হয়।  যদিও এটি টিনএজারদের ক্ষেত্রে বেশি হয়, কিন্তু একটি সম্ভাবনা থাকে যে পিসিওএস প্রাপ্তবয়স্কদেরও সন্তান জন্মের আগে বা পরে প্রভাবিত করতে পারে।  এই রোগ নিয়ন্ত্রণ করা এবং দীর্ঘমেয়াদি স্বাস্থ্যের সমস্যা রোধ করার জন্য চিকিৎসা করা একান্তই জরুরি। 

 

পিসিওএসের সাধারণ উপসর্গ 

  • মুখের চুলের হঠাৎ বৃদ্ধি অর্থাৎ ঝুলপি, থুতনির নিচে এবং শরীরের চুল – বুকে, মধ্যচ্ছদা, নাভি, পিঠের নিচের অংশে। 
  • টাকের অ্যান্ড্রোজেনিক রূপ বা চুল কমে যাওয়া বা চুল পড়া 
  • গলার স্বরের পরিবর্তন বা এমন কোনো পরিবর্তন যা পুরুষ বয়ঃসন্ধির সাথে জড়িত। 
  • অস্বাভাবিক মাত্রার আঁচিল বা ব্রণের উপস্থিতি

পিসিওএসের চিকিৎসা

 পিসিওএস আপনার শরীরকে কিভাবে প্রভাবিত করে

চিকিৎসার প্রথম ধাপ হলো হরমোনের ভারসাম্যহীনতা নিয়ন্ত্রণে আনা এবং ডিম্বস্ফোটনকে উদ্দীপনা করা।  এটি ওষুধের মাধ্যমে করা হয়, সিস্টগুলিকে বার করে দেবার জন্য ওরাল কন্ট্রিসেপ্টিভ পিলের (ওসিপি) একটি সংমিশ্রণ তার পর ওরাল ওষুধের মাধ্যমে অনিয়মিত হরমোনের উৎপাদন এবং অনিয়ন্ত্রিত সুগার লেভেলের নিয়ন্ত্রণ করা হয়।   এই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ওজনকে নিয়ন্ত্রণে আনা এবং নিয়মিত ব্যায়াম করা, পিসিওএসের নিয়ন্ত্রণের জন্য দ্রুততম উপায় হলো ওজন কমানো। 

যদিও ওসিপি একটি তাৎক্ষণিক চিকিৎসা, কিন্তু সময়ের সাথে, হরমোনের ভারসাম্যহীনতা নিয়ন্ত্রণ করা দরকার নইলে এটি মহিলার জননতন্ত্রে আরও সমস্যা তৈরী করবে।   ডিম্বস্ফোটনের অভাবে বন্ধ্যাত্ব হতে পারে 

ভালো বিষয়টি হলো, পরিসংখ্যানগতভাবে 20% মহিলাদের, যাদের পলিসিস্টিক ওভারি আছে, ডিম্বস্ফোটন বা গর্ভধারণের সমস্যা নাও থাকতে পারে।  অন্য অনেক রোগের চেয়ে আলাদা, পিসিওএস একবার চিকিৎসা শুরু হলে নিয়ন্ত্রণ করা সহজ।  পিসিওএসের উপসর্গগুলির আগে চিহ্নিত করতে পারা এবং ডায়েট ও ব্যায়ামের মাধ্যমে ইনসুলিন প্রতিরোধের উন্নতি করা পিসিওএসের সমস্যাগুলি রোধ করতে পারে যার মধ্যে রয়েছে বন্ধ্যাত্ব এবং গর্ভাবস্থার সময়ে অন্যান্য জটিলতা। 

সময়ে একজন এন্ডোক্রিনোলজিস্ট এবং একজন গাইনেকোলজিস্টকে দেখানো দুশ্চিন্তা কমাতে পারে।  পিসিওএস আরও বড় স্বাস্থ্যের সমস্যা যেমন ডায়াবেটিস এবং হার্টের অসুবিধার প্রারম্ভিক সতর্কবার্তা হতে পারে যার জন্য সারা জীবন চিকিৎসার প্রয়োজন হয়।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on google
Google+
Share on pinterest
Pinterest

Leave a Reply

Your email address will not be published.